ব্যাক ডেট এন্ট্রি। পেছনের তারিখে কালেশন পোস্টিং। সেটিং থেকে ব্যাকডেট এন্ট্রি কন্ট্রোল।

সমবায় সমিতি বা এজাতীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয় হচ্ছে কালেকশন পোস্টিং করা। ডিজিটাল ভাবে হোক বা খাতাপত্রে হোক, কালেকশন পোস্টিং কিন্তু করতেই হয়। এক্ষেত্রে অবশ্যই অবশ্যই দিনের কাজ দিনে শেষ করা উচিত। অনেক প্রতিষ্ঠান এ বিষয়টা শতভাগ বাধ্যতামূলক।
আমরা যখন শুরুতে সফটওয়্যার তৈরি করি, তখন পেছনের তারিখে পোস্টিং দেয়ার ব্যবস্থা ছিল না। অর্থাৎ দিনের কাজ দিনেই শেষ করতে হতো। কিন্তু আমরা প্রচুর পরিমাণে রিকোয়েস্ট পাই যে দিনের কাজ দিনে শেষ করতে না পারার কারণে পরদিন পোস্টিং কমপ্লিট করতে হয়।
তো সে মতে আমাদের সিস্টেমেও পেছনের তারিখে ডাটা এন্ট্রি দেবার ব্যবস্থা রয়েছে। তো এই সিস্টেম এর সুফল যেমন রয়েছে এর কুফল ও তেমন রয়েছে। অর্থাৎ আমরা এমন অনেক ঘটনা জানতে পেরেছি যে ম্যানেজার বা মাঠ কর্মীদের মাধ্যমে ব্যাকডেটেড চালু থাকায় বিভিন্ন ধরনের সমস্যা তৈরি হয়েছে।
তো এর সমাধান কল্পে আমরা সেটিংস এর মধ্যে একটা অপশন চালু করেছি যেখান থেকে আপনি ব্যাকডেট কন্ট্রোল করতে পারবেন। অর্থাৎ আপনি যদি ব্যাকডেটেড এট্রি চালু রাখেন সে ক্ষেত্রে কালেকশন পোস্ট দেয়ার সময় পেছনের তারিখ সিলেক্ট করা যাবে।
আর যদি বন্ধ রাখেন সে ক্ষেত্রে কোন পেছনের তারিখে এন্ট্রি দেয়া সম্ভব হবে না। আর পেছনের তারিখে পোস্টিং করার অনুমতি বা নিয়ম থাকলে আসলে ফাঁকফোকর থেকেই যায় জালিয়াতি করার।
আর সমস্ত জালিয়াতি বন্ধের একটা অন্যতম উপায় হচ্ছে দিনের কাজ দিনের শেষ করা এবং মেসেজিং সিস্টেম চালু রাখা। মেসেজিং সিস্টেম চালু রাখলে গ্রাহক তাৎক্ষণিক জেনে যায় তার বর্তমান ব্যালেন্সঃ সহ যাবতীয় সব কিছু।
মেসেজিং সিস্টেম ব্যবহার করতে খরচ হয় এটা আপনার কাছে অনেক মনে হতে পারে। কিন্তু যখন অনিয়ম আপনাকে ধরে বসে, তখন কিন্তু অনেক সময় এমন সব অ্যামাউন্ট গায়েব হয়ে যায় যেটা সেই খরচের তুলনায় নগন্য হয়ে যায়।
তবে আমরা ব্যাকডেট পৌষ্টিক দেয়ার ফলে যে ধরনের জালিয়াতি করা সম্ভব সেই ব্যাপার গুলো নিয়ে গবেষণা করে কিছু সিস্টেম তৈরিতে হাত দিয়েছি। যেখান থেকে খুব সহজেই ধরা পড়ে যাবে যদি কেউ ব্যাকডেটে পোস্টিং করে ঝামেলা পাকাতে চায় বা অস্বীকার করে। সেটা হোক এডমিন, ম্যানেজার বা ফিল্ড অফিসার । সবার ক্ষেত্রেই বিষয়টি ধরা পড়ে যাবে তাৎক্ষণিক।
আসলে একটা সমবায় প্রতিষ্ঠানঃ বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান পুরোটাই নির্ভর করে হিসেবের স্বচ্ছতার উপর। এক্ষেত্রে যদি আপনি সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ১ % ছাড় দেন তাহলে এই ১ % আগামী দিনে আপনাকে ৫০% ঝামেলায় ফেলে দিবে এটা সুনিশ্চিত।
অতএব পরিচালনায় আরো মনোযোগী হন এবং প্রবৃদ্ধি অর্জন করুন। আমরা শতভাগ চেষ্টা করব আপনাকে সহযোগিতা করতে। আন্তরিকভাবে সমস্যাগুলো জানালে আমরাও সমাধানে আন্তরিক হবো ইনশাআল্লাহ
92 Views